১৭/০৬/২০২৪ ইং
Home / অন্যান্য / কালুরঘাট সেতু হবে পদ্মা সেতুর আদলে

কালুরঘাট সেতু হবে পদ্মা সেতুর আদলে

চট্টগ্রাম | বৃহস্পতিবার, ৭ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

নিউজ ডেস্ক :

বহুল প্রতীক্ষিত কালুরঘাট সেতু নির্মাণের সকল প্রতিবন্ধকতা কাটিয়ে বাস্তবায়নের পথে প্রায় চূড়ান্ত পর্যায়ে চলে এসেছে। গতকাল সকাল ১০টায় রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের সদর দপ্তর সিআরবিতে কালুরঘাট রেল কাম সড়ক সেতুর প্রাথমিক সমীক্ষা শেষে সেতু নির্মাণের স্থান, নকশা, ব্যয় ও নির্মাণকাল নিয়ে প্রাথমিক প্রস্তাবনা রেলওয়ে পূর্বাঞ্চল কর্তৃপক্ষের কাছে তুলে ধরেছে দাতা সংস্থা কোরিয়ান এক্সিম ব্যাংক। বৈঠকে নতুন সেতুর প্রস্তাবিত নকশা ও আনুষঙ্গিক বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। নতুন ডিজাইনে সেতুটির নির্মাণ ব্যয় বেড়েছে পাঁচ গুণের বেশি। ৬ হাজার ৩৪১ কোটি টাকা ব্যয়ে কালুরঘাট সেতু নির্মাণ করা হবে দ্বি-তলা বিশিষ্ট পদ্মা সেতুর আদলে। আগামী আগস্ট মাসে পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে। তারপর ডিজাইন শেষে টেন্ডার আহ্বান করা হবে। টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ করতে সময় লাগবে ৭-৮ মাস। এ বছরেই টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ করে কালুরঘাট সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হবে বলে জানান রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের জেনারেল ম্যানেজার মো. জাহাঙ্গীর আলম।

তিনি গতকাল গণমাধ্যমকে জানান, পদ্মা সেতুর আদলে এ সেতু নির্মিত হবে। ওপরে চলবে গাড়ি, নিচে ট্রেন। মোট তিনটি লাইন থাকবে। এ সেতুর সমস্ত ব্যয় বহন করবে কোরিয়ান এক্সিম ব্যাংক। সেতু নিয়ে কোরিয়ান এক্সিম ব্যাংক ফিজিবিলিটি স্টাডি করছে। বাংলাদেশ রেলওয়ে পূর্বাঞ্চল চিপ ইঞ্জিনিয়ার আবু জাফর মিয়া জানান, আগামী (আগস্টে) মাসে কোরিয়ান এক্সিম ব্যাংক ফাইনাল ফিজিবিলিটি স্টাডি রিপোর্ট জমা দেবে। এখন যে সেতু রয়েছে সেখান থেকে হালদার উজানের দিকে ৭০ মিটার দূরে নতুন সেতুটি নির্মিত হবে। এছাড়াও একটি সংযোগ সড়ক নির্মিত হবে, সেটি করবে রোডস অ্যান্ড হাইওয়ে। প্রাথমিকভাবে সেতুর দৈর্ঘ্য আমাদের বলা হয়েছে ৭৮০ মিটার, বায়াডাক্ট ৫ দশমিক ৬২ মিটার। স্পেন হবে ১০০ মিটার। সেতুর উচ্চতা হবে ১২ দশমিক ২ মিটার।

দাতা সংস্থার প্রস্তাবনা অনুযায়ী, সেতু নির্মাণের সম্ভাব্য সময় ধরা হয়েছে কাজ শুরুর সময় থেকে চার বছর। একনেকে অনুমোদন, দরপত্রসহ আনুষাঙ্গিক প্রক্রিয়া শেষ করে আগামী বছর অর্থাৎ ২০২৩ সালে তারা সেতুর কাজ শুরু করতে পারবে। সেক্ষেত্রে সেতুটি নির্মাণ শেষ হতে বর্তমান সময় থেকে পাঁচ বছর অর্থাৎ ২০২৭ সাল পর্যন্ত সময় লাগবে। বোয়ালখালীসহ দক্ষিণ চট্টগ্রামবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি কালুরঘাট রেল-কাম সড়ক সেতুর বাস্তবায়ন ও অগ্রগতি নিয়ে গতকাল সিআরবিতে রেল মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা ও কোরিয়ান প্রতিনিধিদের এই বৈঠকে চট্টগ্রাম-৮ আসনের সংসদ সদস্য ও চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমদও উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে কালুরঘাট সেতুর অগ্রগতি সম্পর্কে মোছলেম উদ্দিন আহমদ এমপি বলেন, ২০১০ সালে কর্ণফুলী তৃতীয় সেতু উদ্বোধন করতে এসেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। সেদিন আমরা সিডিএর মাঠে একটা জনসভা করেছিলাম। সেখানে তিনি ঘোষণা করেছিলেন যে, কালুরঘাটেও একটি নতুন সেতু নির্মাণ করে দিবেন। যেটাতে একপাশে গাড়ি এবং নিচে ট্রেন চলতে পারবে। কিন্তু দীর্ঘ এগারো বছর সময় গেছে। আমার আগে যিনি এমপি ছিলেন তিনিও চেষ্টা করেছিলেন, হয়নি। বিভিন্ন জটিলতার কারণে এটি একনেকে গিয়েও ফেরত এসেছে। তখন কিন্তু খরচও অনেক কম ছিল। শেষ পর্যন্ত আমি দায়িত্বে আসার পর এটি নিয়ে আবার কাজ শুরু করলাম। পরে নকশার জন্য টেন্ডার হলো।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একনেকের মিটিংয়ে বললেন, এটি আবার রিভাইস করে আনার জন্য। একটা ভুল বোঝাবুঝি হয়েছিল। লেখা হয়েছিল দুইটা সেতু করার কথা, একটা রেলসেতু আরেকটা সড়ক সেতু। পরবর্তী সময়ে ওই নকশা করে যখন প্রধানমন্ত্রীর কাছে নিয়ে যায় তখন তিনি বলেন, আমি তো এরকম বলিনি, একটিই সেতু হবে। সেটিতে গাড়ি ও ট্রেন উভয় চলবে। এছাড়া দু’পাশে দুই মিটার করে চার মিটার হাঁটার রাস্তা থাকবে। করোনাকালীন সংকটের মধ্যেও প্রতিনিয়ত মন্ত্রণালয় ও স্থানীয় রিসোর্ট ডিভিশন, যারা অর্থায়নের জন্য বিদেশের সাথে কথা বলেছিল তাদের সাথে সচিব, মন্ত্রীসহ বারবার কথা বলার পর পুনরায় টেন্ডার হয়েছে। ওই টেন্ডারে আগে যারা স্ট্যাডি করেছিল তারাই আবার কাজটি পেয়েছে। ফলে খুব কম সময়ে ডিজাইনটা সাবমিট করেছে। তবে এর আগে রেলসহ অন্যান্যদের সাথে আলাপ করে আরও সুন্দরভাবে তৈরি করে সরকারের কাছে জমা দেওয়ার জন্য তারা কিছু সময় নিয়েছে। আগামী আগস্টে তারা সেটি জমা দিবেন।

এ জন্য আজ রেলের সাথে একটি চূড়ান্ত বৈঠক হয়েছে। বৈঠকে আরো উপস্থিত ছিলেন, ইউশিন ইঞ্জিনিয়ারিং কর্পোরেশনের কান্ট্রি ম্যানেজার কোণ উক পার্ক, কালুরঘাট রেল কাম সড়ক সেতুর প্রজেক্ট ম্যানেজার প্রকৌশলী মোঃ গোলাম মোস্তফা, ডেভেলাবমেন্ট ডিজাইন কনসালটেন্টস লিঃ এর সিনিয়র ইঞ্জিয়ার মোঃ আনোয়ারুল হক, ডেভেলাবমেন্ট ডিজাইন কনসালটেন্টস লিঃ এ জেনারেল ম্যানেজার মোঃ রিয়াজুর রহমান, সড়ক ও জনপথ চট্টগ্রাম বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী পিন্টু চাকমা ও দায়িত্বপ্রাপ্ত রেলওয়ের কর্মকর্তাবৃন্দ।

বিশ্বের যে কোনো প্রান্ত থেকে দেশ-বিদেশের সব খবর সবার আগে জানতে ভিজিট করুন- talashtv24.com

Print Friendly, PDF & Email

About newsdesk

Check Also

বঙ্গবন্ধুর ১০৪তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে শওকত ইরফান রিয়াদের উদ্যোগে পবিত্র খতমে কুরআন ও দো’য়া অনুষ্ঠিত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *